কুষ্টিয়া দৌলতপুর ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসাতে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের স্থান ভাঙচুর-সহিংসতার আশংকা

newsline24newsline24
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  04:37 PM, 14 February 2024

আব্দুস সবুর ঢাকা: কুষ্টিয়া দৌলতপুর ফিলিপনগর ইউনিয়নের পূর্ব ফিলিপনগর নগর গোলাবাড়ীয়াতে”ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসা”র জাতীয় পতাকা উত্তোলন স্থান ভাংচুর। ভেঙেছে উক্ত প্রতিষ্ঠানের কিছু উশৃংখল ছাত্র ও স্থানীয় ছাত্র নামধারীদের সহযোগিতায়।গত ১২/০২/২০২৪ ইং তারিখ সকাল ১০:১৫ ঘটিকার সময়(তথ্য মাদ্রাসা সুপার)উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলমান অবস্থায়,মাদ্রাসার সুপার ও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষমন্ডলীদের উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে।পরে প্রতিষ্ঠান প্রধান ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি “ইন্জিনিয়ার ওবাইদুল হক বিপ্লব”-কে ঘটনাটি অবগত করলে ঘটনাস্থলে সভাপতি তাৎখনাৎ গিয়ে সত্যতা পান এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়মানুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের প্রস্তুতি গ্রহন করেন।উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিছু অসাধু মহল,অসাধু চক্রান্তের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানকে বিতর্কিত করার পায়তারায় মরিয়া বলে স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে।এ নিয়েস্থানীয়দের মধ্যে চলছে বেশ কানাঘোষা,চলছে কান কথা।তবে এর প্রতিবাদে ও বিচারের দাবিতে নিশ্চুপ ভূমিকায় ছিলেন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ,অভিভাবক সদস্যগন,ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও মুক্তিযোদ্ধাসহ সাধারণ মানুষ,কোনো অবস্থান কর্মসূচি পালন করেনি,করেনি কোনো প্রতিবাদ কর্মসূচি।কারন-কিশোর বয়সে শাসনের মাধ্যমে সংশোধন হওয়ার সুযোগ আছেকিনা এ বিষয়ে বিবেচনায় ছিলেন উক্ত দাখিল মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।তবে এতোবড় সহিংসতার ঘটনা অবগত করেনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে।স্থানীয়দের তথ্যমতে “ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসা”র সাবেক সভাপতি শামসুল আলমের জি-ই-য়ে রাখা ক্ষোভের কারনে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করেন স্থানীয় সু-শীল সমাজের ব্যাক্তিরা।উল্লেখিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বর্তমান সভাপতি “ইন্জিনিয়ার ওবাইদুল হক বিপ্লব”ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে উন্নতির দিকে এগিয়ে চলেছে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,বেড়েছে শিক্ষার গুনগতমান,পড়ালেখার আগ্রহ বেড়েছে ছাত্র ছাত্রীদের।সভাপতি”ইন্জিনিয়ার ওবাইদুল হক বিপ্লব”এর চিন্তাধারা কিভাবে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আরো ডিজিটালাইজেশন করা যায় সে ব্যাপারে সদা তৎপর তিনি।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অত্র এলাকার সু-শীল সমাজের একজন বলেন,দীর্ঘদিন ধরে এই মাদ্রাসার সভাপতি ছিলেন এলাকার ছেলে শামসুল আলম সভাপতি থাকাকালীন তার দ্বারা এমন উন্নতি হয়নি এই মাদ্রাসার,তবে বেশ কয়েকজনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে এই মাদ্রাসাতে শামসুল আলমের দ্বারা।এই কর্মসংস্থানের মধ্যেও রয়েছে ধুম্রজাল।অত্র এলাকার এক মুক্তিযোদ্ধার সাথে ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসার বিষয়ে কথা বলে জানা গেছে,জাতীয় পতাকা উত্তোলনের খুঁটি যেখানে স্থায়ীভাবে লাগানোর জন্য জায়গা তৈরি করেছিলো মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ,সেটি ভেঙে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানের কিছু ছাত্র ও স্থানীয় নামধারী ছাত্র ব্যক্তিরা।স্থানীয় রাজনৈতিক রোসানলের কারনেই এমন ঘটনা ঘটেছে,স্থানীয়দের তথ্যমতে আরো জানা যায়,ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী অভিভাবক সদস্য গন ও বর্তমান সভাপতি কোনো ঝামেলা পছন্দ করেন না,তিনি পেশাতে একজন প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদার।স্থানীয় একটি কু-চক্রী মহল অতি উৎসাহী নাবালক ছাত্রদের নানান নেগেটিভ ইন্ধন দিয়েছেন ও স্থানীয় অছাত্রদের সহযোগিতায় মাদ্রাসার জাতীয় পতাকা স্থায়ীভাবে উত্তোলনের স্থানটি ভাঙচুর করা হয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে তথ্য পাওয়াগেছে।এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।এ বিষয়ে ফিলিপনগর দাখিল মাদ্রাসা সুপার এর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন,বিষয়টি নিয়ে আমরা বেশ বিব্রত,সভাপতি সাহেবকে জানানো হয়েছে তিনি যে পদক্ষেপ গ্রহন করবেন সেটাই হবে এবং এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তিনি।তবে সভাপতি”ইন্জিনিয়ার ওবাইদুল হক বিপ্লব”এর মুঠোফোনে কয়েকবার কল করে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনাকে পাওয়া জাইনি।

আপনার মতামত লিখুন :